Posts

Featured Post

বাংলা-ব্লগ.কমে লেখুন।

Image
আসসালামু আলাইকুম, বাংলা-ব্লগ.কমে আপনাকে স্বাগতম। বর্তমান বিশ্বে ইন্টারনেটে বাংলাকে আরো একধাপ এগিয়ে নিতেই বাংলা-ব্লগের পথচলা। আপনি কী? অনলাইনে লেখালেখি করতে ভালোবাসেন,তাহলে আপনাকে বাংলা ব্লগে স্বাগতম, ,আপনি চাইলে আমাদের ব্লগে আপনি লেখালেখি করতে পারেন। ফেইসবুকে আমার সাথে যোগাযোগ করুন  ফেইসবুক অথবা ইমেলইল করুন: Info.Ahmedalauddin5330@gmail.com

আমলকীর গুণাগুণ ও উপকারিতা।

Image
আমলকী বা ‘আমলকি’ একপ্রকার ভেষজ ফল। সংস্কৃত ভাষায় এর নাম ‘আমালিকা’। কাঁচা আমলকি: আমলকি নিয়ে প্রাথমিক গবেষণা সম্পন্ন হয়েছে। এতে দেখা গেছে যে, এটি ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে পারে। প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, রিউমেটয়েড আর্থ্রাইটিস এবং অস্টিওপোরোসিস রোগে আমলকির রস কিছু কাজ করে। কয়েক ধরনের ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও এর কার্যকারিতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। প্যানক্রিয়াটাইটিস রোগেও আমলকি কার্যকর বলে ইঁদুরের উপর চালিত গবেষণায় প্রমান মিলেছে। প্যানক্রিয়াটাইটিস রোগের পরে ক্ষতিগ্রস্ত প্যানক্রিয়াস (অগ্ন্যাশয়) -এর ক্ষত সারাতে আমলকি কার্যকর। আমলকির ফল, পাতা ও ছাল থেকে তৈরি পরীক্ষামূলক ওষুধে কিছু রোগ নিরাময়ের প্রমাণ পাওয়া গেছে যেমন- ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, প্রদাহ এবং কিডনি-রোগ। আমলকি মানুষের রক্তের কোলেস্টেরল-মাত্রা হ্রাস করতে পারে বলে প্রমাণ রয়েছে ডায়াবেটিক ইঁদুরের উপর চালানো এক গবেষণায় দেখা গেছে, আমলকির রস রক্তের চিনির মাত্রা কমাতে পারে এবং লিভারের কর্মক্ষমতা পুনরোদ্ধারে সাহায্য করতে পারে। [৯] আমলকিতে প্রচুর ভিটামিন-সি বা এস্করবিক এসিড থাকে (৪৪৫ মিগ্রা/১০০ গ্রাম)। তা সত্ত্বেও আরো অন্যান

তুলসী পাতার গুণাগুণ ও উপকারিতা।

Image
  তুলসী তুলসী একটি ঔষধিগাছ। তুলসী অর্থ যার তুলনা নেই। সুগন্ধিযুক্ত, কটু তিক্তরস, রুচিকর। এটি সর্দি, কাশি, কৃমি ও বায়ুনাশক এবং মুত্রকর, হজমকারক ও এন্টিসেপটিক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। তবে বিশেষ করে কফের প্রাধান্যে যে সব রোগ সৃষ্টি হয় সে ক্ষেত্রে তুলসী বেশ ফলদায়ক। ঔষধিগুণ: শিশুদের সর্দি কাশির জন্য এটি একটি মহা ঔষধ হলেও যে কোন বয়সের মানুষই এ থেকে উপকার পেয়ে থাকে । শুধু পুজো-অর্চনাতেই লাগে না ৷ তুলসী পাতার অনেক গুণ রয়েছে ৷ জ্বর হলে জলের মধ্যে তুলসী পাতা, গোল মরিচ এবং মিশ্রী মিশিয়ে ভাল করে সেদ্ধ করুন ৷ অথবা তিনটে দ্রব্য মিশিয়ে বড়ি তৈরি করুন ৷ দিনের মধ্যে তিন-চার বার ঐ বড়িটা জলের সঙ্গে খান ৷ জ্বর খুব তাড়াতাড়ি সেরে যাবে। পেট খারাপ হলে তুলসীর ১০ টা পাতা সামান্য জিরের সঙ্গে পিষে ৩-৪ বার খান ৷ পায়খানা একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে, মানে পায়খানার ওই সমস্যাটা আর কি! মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে দিনে ৪-৫ বার তুলসী পাতা চেবান ৷ ঘা যদি দ্রুত কমাতে চান তাহলে তুলসী পাতা এবং ফিটকিরি একসঙ্গে পিষে ঘা এর স্থানে লাগান, কমে যাবে ৷ শরীরের কোন অংশ যদি পুড়ে যায় তাহলে তুলসীর রস এবং নারকেলের তেল ফেটিয়ে লাগান, এতে জ্বালা কমবে ৷ পোড়

আকন্দ গাছের গুণাগুণ ও উপকারিতা।

Image
আকন্দ আকন্দ এক প্রকার গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ। এই গাছ সাধারণত: ৩-৪ মিটার পর্যন্ত উচুঁ হয়ে থাকে। আকন্দ দুই ধরণের গাছ শ্বেত আকন্দ ও লাল আকন্দ। শ্বেত আকন্দের ফুলের রং সাদা ও লাল আকন্দের ফুলের রং বেগুনি রং এর হয়ে থাকে। গাছের পাতা ছিড়লে কিংবা কান্ড ভাঙ্গলে দুধের মত কষ (তরুক্ষীর) বের হয়। ফলসবুজ,অগ্রভাগ দেখতে পাখির ঠোটের মত। বীজ লোম যুক্ত,বীজের বর্ণ ধুসর কিংবা কালচে হয়ে থাকে। উপকারিতা / লোকজ ব্যবহার: আকন্দ চুলের রোগ, ব্যাথা এবং বিষনাশে বিশেষ কার্যকরী। দাদ ও টাকপড়া নিবারক। আকন্দের কষ তুলায় ভিজিয়ে লাগালে দাত ব্যথা দুর করে এবং যোনিতে ধারণ করলে গর্ভপাত ঘটায়। আকন্দ বাদ বেদনা নিবারক ও ফোলা অপসারক। আকন্দ পাতা ও হলুদের তৈরি বড়ি শোথ/ ফোলা/পান্ডু রোগ নাশখ এবং রস কৃমি নাশক। কোন অংশ কি ভাবে ব্যবহার করতে হয়: অম্বল/এসিডিটি দেখা দিলে: ০.৬৫ গ্রাম পরিমাণ আকন্দ পোড়া ছাই পানিসহ পান করলে সঙ্গে সঙ্গে উপকার পাওয়া যায়। পেট কাপড়ানি বা পেট জ্বালায়: আকন্দ পাতার সোজা দিকে সরিষার তেল মাখিয়ে পাতাটি অল্প গরম করে পেটের উপর রাখলে বা ছেঁক দিলে পেট কামড়ানো বা পেট জ্বালা বন্ধ হয়। শোথ/ফোলা রোগে: আকন্দ বিশেষ উপকার

অর্জুন গাছের গুণাগুণ ও উপকারিতা।

Image
  অর্জুন ভেষজশাস্ত্রে ওষধি গাছ হিসাবে অর্জুনের ব্যবহার বলা হয়েছে। এই উদ্ভিদ কমব্রিটেসি গোত্রের অন্তর্ভুক্ত। এর বৈজ্ঞানিক নাম ‘টারমিনালিয়া অরজুনা’, সংস্কৃত নাম ককুভ। বৃহদাকৃতির বহুবর্ষজীবী এই উদ্ভিদটি প্রায় ১৮-২৫ মিটার উচ্চতা বিশিষ্ট হয়ে থাকে। গাছটির মাথা ছড়ানো ডালগুলো নীচের দিকে ঝুলোনো থাকে। পাতা দেখতে অনেকটা মানুষের জিহ্বাকৃতির। ছাল খুব মোটা এবং ধূসর বর্ণের। গাছ থেকে সহজেই ছাল ওঠানো যায়। ফল দেখতে কামরাঙার মতো, পাঁচ খাঁজ বিশিষ্ট কিন্তু আকৃতিতে অনেক ছোট। ভেষজ গুণ বুক ধড়ফড় করলে অর্জুন ছাল কাঁচা হলে ১০-১২ গ্রাম, শুকনো হলে ৫-৬ গ্রাম একটু ছেঁচে ২৫০ মিলি দুধ ও ৫০০ মিলি জলের সাথে মিশিয়ে জাল দিয়ে আনুমানিক ১২৫ মিলি থাকতে ছেঁকে খেলে বুক ধড়ফড়ানি কমে যায়। তবে পেটে যাতে বায়ু না থাকে সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে। অর্জুন ছাল বেটে খেলে হৃৎপিন্ডের পেশি শক্তিশালী হয় কার্যক্ষমতা বাড়ে। এটি রক্তের কোলেস্টরল কমায় এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। বিচুর্ণ ফল মূত্রবর্ধক হিসেবে কাজ করে এবং লিভারসিরোসিসের টনিক হিসাবে ব্যবহৃত হয়। অর্জুনের ছালে ট্যানিন রয়েছে, এ টানিন মুখ, জিহ্বা ও মাড়ির প্রদাহের চিকিৎসায় ব

১০০টি প্রয়োজনীয় যৌন টিপস।

Image
লজ্জা বা আড়ষ্ঠতার কারণে অনেকেই সেক্স নিয়ে খুব একটা ভাল ধারণা রাখেন না। ফলে ব্যক্তিগত যৌনজীবন হয়ে পড়ে একঘেঁয়েমীপূর্ণ এবং বৈচিত্র্যহীন। আবার অজ্ঞতার কারণে বিভিন্ন রকম যৌন সমস্যায় পতিত হবার সম্ভাবনাও থাকে। এসব সমস্যা থেকে উত্তীর্ণ হতে সেক্স সিক্রেট জানাটা গুরুত্বপূর্ণ।   *আসুন জেনে নিই, ১০০ টি যৌন টিপস*   ১) কারো শরীর দেখে কি সেক্সচুয়াল সক্ষমতা বোঝা সম্ভব?   : না।  ২) অনেক দূরে থাকা প্রিয়জনের সাথে ফোন সেক্স করতে চান অথচ বলতে লজ্জা পাচ্ছেন, লজ্জা ভাঙ্গবেন কীভাবে?  : প্রথমে তাকে মজার এসএমএস পাঠান। দেখবেন ইজি হয়ে যাবেন তার সাথে।  ৩) পানির নিচে কনডম কতটা কার্যকর?  : তা এখনো পরীক্ষা করা হয়নি তাই বিশ্বস্ততার সার্থে সতর্ক হওয়া উচিত।  ৪) পছন্দের ব্যক্তির কাছে নিজেকে বিশ্বস্ত করার জন্য সবচেয়ে ভালো গান কি হতে পারে।  : জাস্টিফাই মাই লাভ বাই ম্যাডোনা।  ৫) যদি পার্টনার আপনার চেয়ে অনেক বেশি লম্বা হয় তবে শারীরিক সম্পর্ক করার ক্ষেত্রে কি করবেন।  : এমন স্থান এবং আসন নির্বাচন করা উচিত যেখানে আপনি সিক্সড কন্ট্রোল করতে পারবেন। যেমন মেয়ে পার্টনার উপরে থাকা।  ৬) বো জব এর সময় অনেকেই দাঁত ব্যবহার

মেয়েদের দুধ বড় করার স্বাভাবিক উপায়।

Image
স্তন ছোট হওয়ার জন্য অনেক মেয়েই দুশ্চিন্তায় ভুগতে থেকে। এর জন্য নিজের কনফিডেন্স কমে যায়। নিজের মনের মত পোশাক পরা যায় না। আর এই সমস্যার কথা কাউকে বলাও যায় না। সারাক্ষণ দুশ্চিন্তা হতে থাকে যে, কিভাবে সঠিক স্তন পাওয়া সম্ভব। যারা এই সমস্যায় ভুগছে তাদের বলব, চিন্তার কারণ নেই কারণ বাড়িতে বসেই প্রাকৃতিক ভাবে স্তন বড় করার অনেক উপায় আছে। যেগুলো করাও কঠিন নয়, আবার সমস্যার সমাধান ও হয়। জেনে নিন।  ব্রেস্ট ম্যাসাজ  ব্রেস্ট বড় করার জন্য রোজ ব্রেস্ট ম্যাসাজ করুন। এর চেয়ে ভালো উপায় আর কিছু হয় না। রোজ সরষের তেল গরম করে ম্যাসাজ করতে পারেন। বা মধুও ব্যবহার করতে পারেন। ম্যাসাজ খুব ভালো কাজ দেয়। আস্তে আস্তে ব্রেস্ট বড় হবে। এছাড়াও দুহাত ঘষে গরম করে নিন। গরম হাত দুটো ব্রেস্টের নীচে ধরুন। এবার দুহাত দু দিক থেকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করুন। অর্থাৎ ডানহাত ঘড়ির কাঁটার দিকে ঘোরান। আর বাঁ হাত কাঁটার উল্টোদিকে। এভাবে রোজ ১০ থেকে ২০ মিনিট রোজ ম্যাসাজ করুন।  সঠিক ব্রা  ব্রেস্ট বড় করার ক্ষেত্রে ব্রা এর একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সঠিক ব্রা এর অভাবে ব্রেস্টর সাইজ নষ্ট হয়ে যায়। ঠিক সাইজের কাপ ব্রা ব্যবহার করুন। ব্রা খ

যৌন শক্তি বৃদ্ধি করার ৭টি খাবার।

Image
 যৌন স্বাস্থ্যে সমস্যা থাকলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় যৌন সমস্যা নিয়ে লজ্জায় কেউ আলোচনা করে না। প্রকৃতিতেই লুকিয়ে আছে যৌন স্বাস্থ্য সমস্যার অনেক সমাধান। প্রতিদিন খাবার তালিকায় কিছু পরিবর্তন নিয়ে এলেই স্বাস্থ্যকর যৌন জীবন লাভ করা সম্ভব। আসুন জেনে নেই যৌন স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী এমন ৭টি খাবারের কথা।  ১) পালং শাক ও অন্যান্য সবজিঃ  পালং শাকে আছে প্রচুর পরিমাণ ম্যাগনেসিয়াম। ম্যাগনেসিয়াম শরীরে রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে। জাপানের গবেষকদের মতে শরীরে রক্ত চলাচল বাড়লে যৌন উদ্দীপনাও বাড়ে। পালং শাক ও অন্যান্য বিভিন্ন রকম শাক, ব্রকলি, লেটুস, ফুলকপি, বাঁধাকপি এগুলোতে রয়েছে ফলেট, ভিটামিন বি সহ অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এগুলো সুস্থ যৌন জীবনের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কিছু উপাদান।  ২) চিনি ছাড়া চাঃ  প্রতিদিন দুধ-চিনি ছাড়া চা পান করলে শরীরে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যায়। চা ব্রেইন কে সচল করে, রক্ত চলাচল বাড়ায় ও স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। প্রতিদিন অন্তত দিন থেকে ৫ কাপ পর্যন্ত চিনি ছাড়া সবুজ চা বা রঙ চা খেলে যৌন স্বাস্থ্য ভালো থাকে এবং শরীরের ওজন কিছুটা হলেও কমে যায়।  ৩)